Fiverr Gig Optimization করবেন কিভাবে ? Spandada-6

 আপনার Fiverr এ যে কোনো গিগ পাবলিশের পর সবচেয়ে দরকারি হল গিগ অপ্টিমাইজেশন করা। অর্থাৎ কোনো নির্দিষ্ট Search term

এর জন্য আপনার গিগটিকে সার্চ রেজাল্টে উপরের দিকে নিয়ে আসা।

 ধরুন আপনার গিগের মাধ্যমে আপনি লোগো ডিজাইনের সার্ভিস সেল করবেন। কোনো বায়ার যখন Logo Design লিখে Fiverrএ সার্চ দিবে,

তখন আপনার গিগটি যদি সার্চ রেজাল্টে প্রথমদিকে না থাকে তবে কাঙ্খিত সেল পাবেন না। আবার অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায়, গিগে প্রচুর ভিজিটর

থাকা সত্ত্বেও অর্ডার আসছে না। এ সব দিকে বিবেচনা করে কাজ করতে হবে।

Fiverr Best Freelancer Site : Sign up Now

গিগের কনভার্সন বৃদ্ধি ও অপ্টিমাইজেশনের জন্য আমার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা থেকে কিছু টিপস

১. Research :

যে কোনো গিগ পাবলিশের আগে পর্যাপ্ত পরিমানে রিসার্চ করে নিন। আপনি যেই সার্ভিসটি অফার করবেন,সেটার জন্য বায়াররা কোন Keyword

লিখে সার্চ দিতে পারে তার একটা লিষ্ট করে ফেলুন। এবার এই Keyword গুলো লিখে Fiverr এ সার্চ দিন, গিগগুলো দেখুন। একজন বায়ার এর

দৃষ্টিতে বোঝার চেষ্টা করুন কোন গিগগুলো আপনার দৃষ্টি আকর্ষণ করছে। সেই গিগগুলোর টাইটেল, বর্ণনা, ছবি সবকিছু ভালো করে খেয়াল করুন।

এবার আপনার গিগে তার প্রতিফলন ফেলুন, গিগ থেকে আইডিয়া নিন, কিন্তু কখনোই কপি পেষ্ট করবেন না, অন্যের গিগ কপি করে ধরা খেলে

আপনার অ্যাকাউন্ট ব্যান হয়ে যেতে পারে।

২. Gig Title:

গিগ টাইটেল খুবই গুরুত্বপূর্ণ, কারণ হাজার হাজার গিগের মাঝে আপনার গিগটির উপর বায়ারের প্রাথমিক আগ্রহ তৈরি করার কাজটি করবে এই

টাইটেল। তাই টাইটেলটি হতে হবে আকর্ষণীয় এবং এতে থাকবে আপনার পুরো গিগের প্রতিফলন। টাইটেলে অবশ্যই আপনার মেইন Keyword টি

রাখুন। টাইটেলে যেহেতু মাত্র ৮০ অক্ষর ব্যবহার করা যায়, তাই কোনো Keyword দুইবার ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন। টাইটেলটিকে হতে হবে

একই সাথে সুন্দর, আকর্ষণীয়, আগ্রহ সৃষ্টিকারী এবং অর্থবহ।

৩. Gig Category & Sub-category :

আপনার গিগের ক্যাটাগরী ও সাব-ক্যাটাগরী নির্বাচনে সতর্কতা অবলম্বন করুন। গিগটি কোন ক্যাটাগরীতে পড়বে যদি বুঝতে সমস্যা হয় তবে

আবার রিসার্চে ফিরে যান। আপনার মূল Keyword টি লিকে সার্চ দিন, দেখুন আপনার সার্ভিসটির মত গিগগুলো কোন ক্যাটাগরীতে দেখাচ্ছে,

সেটা নির্বাচন করুন। যদি একই গিগের জন্য ২টা ক্যাটাগরী নির্বাচন করার মত হয় তবে সেক্ষেত্রে ২টা ভিন্ন গিগ তৈরি করুন এবং ২টা কে ভিন্ন

ভিন্ন ক্যাটাগরীতে পাবলিশ করুন। এক্ষেত্রে ২টা গিগের টাইটেল, বর্ণনা সবকিছু যেন ভিন্ন ভিন্ন হয় সেদিকে খেয়াল রাখুন।

৪. Gig Gallery:

গিগ গ্যালারীতে এমন কিছু অ্যাড করবেন যা দেখে বায়ার এক নিমেষেই আপনার গিগের বিস্তারিত পড়ার জন্য আগ্রহী হয়ে উঠবে। এক্ষেত্রে নেট

থেকে কোনো ছবি নিয়ে পোষ্ট করা থেকে বিরত থাকুন। এমন কিছু দিন যা আপনার নিজের গিগকে রিপ্রেজেন্ট করে। যারা SEO এর কাজ করেন

তারা নেট থেকে র‌য়্যালটি ফ্রি ছবি নামিয়ে প্রয়োজনীয় এডিটিং করে ব্যবহার করতে পারেন। ছবি অবশ্যই JPEG ফর্মেটে হতে হবে এবং রেজুলেশন

হবে 682 pixel X 459 pixel । মনে রাখবেন, এই ছবিটিই আপনার গিগকে সার্চ রেজাল্টে অন্য গিগগুলোর থেকে আলাদা করতে সাহায্য করবে।

৫. Description:

এখানে বিস্তারিতভাবে আপনার গিগটিকে তুলে ধরুন। প্রয়োজনীয় পয়েন্ট, নাম্বারিং ইত্যাদির সাহায্যে বর্ণনাকে অকর্ষণীয় করে তুলুন। প্রয়োজনের

অতিরিক্ত কোনো কথা লেখা থেকে বিরত থাকুন। মনে রাখবেন, বায়ার আপনার গিগ description পড়ার জন্য মাত্র ৫ সেকেন্ড সময় ব্যয় করবে,

এই ৫ সেকেন্ডের মধ্যেই বায়ারকে আপনার গিগের প্রতি আগ্রহী করে তুলতে হবে। 

৬. Tags :

খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়, আপনার গিগের সাথে সামন্জস্যপূর্ণ Tag ব্যবহার করুন। যেহেতু আপনি মাত্র ৫টি Tag ব্যবহার করতে পারবেন,

তাই আপনার গিগকে রিপ্রেজেন্ট করে এমন best ৫টি tag ব্যবহার করুন।

৭. Video :

অনেকেই গিগে ভিডিও ব্যবহার করেন না, মনে রাখবেন ভিডিও ব্যবহার করলে আপনার গিগের বিক্রির সম্ভাবনা ২০০% বেড়ে যায়। গিগের

ভিডিও তৈরির ক্ষেত্রে নিচের টিপসগুলো ফলো করতে পারেন :

  • ভিডিও অবশ্যই ১ মিনিটের মধ্যে হতে হবে।
  • ভিডিওতে আপনি নিজে আপনার গিগটিকে বর্ণনা করুন, এক্ষেত্রে বায়ারের আস্থা বাড়বে আপনার উপর।
  • ভিডিওটিকে আকর্ষণীয় দেখানোর জন্য পর্যাপ্ত আলোর মধ্যে ভিডিও ধারণ করুন।
  • মুখের বাচনভঙ্গির সাথে যেন শব্দ মিলে, অনেকই শব্দ পরে অ্যাড করেন এবং ভিডিওর সাথে শব্দ মিলে না যেটা খারাপ দেখায়, এটা করা থেকে বিরত থাকুন।
  • ভিডিওতে অনর্থক কিছু না বলে স্পষ্ট করে কথা বলুন।
  • ভিডিও তৈরির ক্ষেত্রে ভালো ক্যামেরা এবং মাইক্রোফোন ব্যবহার করুন যাতে ছবি এবং শব্দ ষ্পষ্ট হয়।
  •  “Exclusively on Fiverr” এই কথাটা অবশ্যই গিগে থাকতে হবে। এই কথাটি ভিডিওতে বলে, লিখে অথবা ছবির মাধ্যমে দিতে পারেন।

৮. Profile :

আপনার প্রোফাইল শতভাগ সম্পন্ন করুন। প্রোফাইল পিকচারে অবশ্যই নিজের ফটো ব্যবহার করুন, এটা বায়ারের কাছে আপনার গ্রহণযোগ্যতা

বাড়াবে। অনেক বায়ার আছে কার সাথে কাজ করছে সেটা নিশ্চিত হয়ে অর্ডার করার চেষ্টা করে।

উপরের সবগুলো টিপস মেনে নিয়ে গিগ তৈরি করুন, আশা করি খুব তাড়াতাড়ি অনেক বেশি অর্ডার পাবেন। Fiverr এ আপনার গিগ ভালো

সেল হোক এই কামনা করি। আজকের আলোচনার উপর কোনো প্রশ্ন থাকলে কমেন্টে করতে পারেন।

Fiverr Best Freelancer Site: Sign up Now

Leave a Comment