ওয়েব হোস্টিং কি? দেশীয় হোস্টিং কেনার সময় যে বিষয় গুলি জানা খুব দরকারী ?

আজকে আমি আপনাদের সঙ্গে একটা নতুন বিষয় নিয়ে আলোচনা করবো ।  আমরা যারা ওয়েব সাইট

ব্যবহার করি বা অনলাইন ব্যবহার করি তারা সকলে জানেন।হোস্টিং কি বা এটা কি কাজে ব্যবহার হয়

আসলে ব্লগারেও হোস্টিং দরকার হয় কিন্তু সেটা গুগল আমাদের ফ্রী সার্ভিস দেই তাই সেটা আমাদের কিনতে

হয়না সেই জন্য আমারা জানিনা হোস্টিং কি তবে যারা ব্লগার এর সঙ্গে সঙ্গে ওয়ার্ডপ্রেস ইত্যাদি তে জিন ব্লগা

সাইট তৈরি করে তাদের অবশ্যই এই হোস্টিং বিষয়টি যানতে হবে । তাহলে আমাদের প্রথম যেটা যানতে হবে

সেটা হল হোস্টিং কি ? এবং তার পরেই হোস্টিং কেনার জরুরী বিষয় গুল যানব ।

হোস্টিং কি (Wht is Hosting) :

কোন তথ্যকে অন্যের কাছে তুলে ধরার সবচেয়ে জনপ্রিয় ও সহজ মাধ্যম হচ্ছে ওয়েবসাইট । আজকের

কম্পিউটার ব্যবহারকারী মাত্রই ওয়েবসাইট সম্পর্কে অবগত আছেন । সহজ ভাষায় বলা যায়, ওয়েবসাইট

হল আপনার তথ্যকে অন্যের সামনে উপস্থাপন করার রাস্তা- সেটা টেক্সট বা মাল্টিমিডিয়া (যেমনঃ ছবি,

অডিও বা ভিডিও) যে কোন ধরনের হতে পারে। ওয়েবসাইটে সেগুলো সুন্দরভাবে ফুটিয়ে তোলা ওয়েব

ডেভেলপারের কাজ। আর আপনার ওয়েবসাইটটি অন্যদের দেখার জন্য উপযোগী করাই ওয়েব হোস্টিং নামে

পরিচিত ।

আরো জানুন:

আপনার ওয়েবসাইটটিকে যদি তুলনা করা হয় আপনার প্রতিষ্ঠানের অফিস বিল্ডিং হিসাবে, তবে তার তথ্য

বা কনটেন্ট হবে এর আসবাবপত্র। আর ওয়েবসাইট ডেভেলপ করাকে তুলনা করা যাবে বাড়িটি তৈরি করার

সাথে। সেক্ষেত্রে ওয়েবসাইট হোস্টিংকে তুলনা করা যায় আপনার অফিস বিল্ডিংয়ের জন্য জায়গা কেনা এবং

সে জায়গায় বাড়িটি তৈরি করার সাথে। তবেই ভিজিটররা ওয়েবসাইটি ব্যবহার করার সুযোগ পাবে। কোন

ওয়েব সাইট যে জায়গা জুড়ে থাকবে সেটাই ওই সাইটের হোস্টিং । আমরা দেখি যেকোন ওয়েব সাইট কিছু

টেক্সট এবং মাল্টিমিডিয়া (Picture / Video) দিয়ে তৈরি হয়ে থাকে। এই গুলা যে জায়গা বা BIT দখল

করে তাকে ওই সাইটের হোস্টিং বলে।

হোস্টিং সেবা গ্রহণের আগে যে বিষয় জানা দরকার:

অনেক হোস্টিং কোম্পানি রয়েছে যারা কিনা হোস্টিং প্যাকেজ কিনার আগে নিজেদেরকে সেরা দাবী করলেও

পরবর্তীতে দেখা যায় তাদের সার্ভিস তুলনামূলক ভাবে অনেক খারাপ। বিশেষ করে ব্যান্ডউইথ, আপটাইম,

লোডিং স্পিড, কাস্টমার সাপোর্ট ইত্যাদি বিষয় গুলোর ক্ষেত্রে সর্বদা সমস্যা লেগেই থাকে। তাই এসব সুবিধা

গ্রহণের ক্ষেত্রে হোস্টিং কোম্পানীর সার্ভিসের মান যাচাই বাছাই না করে আকর্ষণীয় বিজ্ঞাপন দেখে বিভ্রান্ত

হওয়ার কোনো অবকাশ নেই।  তাই আজকের আলোচনায় আমরা “হোস্টিং সার্ভিস গ্রহণের আগে যেসব বিষয়

গুলো জেনে একটি ভালো মানের হোস্টিং প্যাকেজ কিনা উচিত” সে বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব। তাহলে

আলোচনা করা যাক:–

1.হোস্টিং সার্ভারে Web best eazy ফাইল ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম আছে কিনা জানতে হবে

2.ডাটা ব্যাকআপ অ্যান্ড ইজি রিস্টোরেশন অপশন আছে কিনা জানতে হবে?

3.পিওর এসএসডি হোস্টিং অন্যান্য নরমাল হোর্স্টিং থেকে ২০ গুন বেশী গতিসম্পন্ন হয়ে থাকে। তাই বর্তমানে

পিওর এসএসডি ছাড়া হোস্টিং নেয়া ঠিক নয়।

আরো জানুন:

4.হোস্টিং কিনার আগে জেনে নিন কোম্পানি সুপার ফাস্ট পিউর এসএসডি স্পেস দিচ্ছে কিনা?

5.জেনে নিন হোস্টিং সার্ভিস প্রদানের ব্যাপারে কোম্পানীর সুনাম আছে কিনা? প্রয়োজনে তাদের রিভিউস চেক করে দেখতে পারেন।

6.হোস্টিং প্যাকেজ নেওয়ার পর, হোস্টিং কন্ট্রোল আপনার হাতে থাকবে কিনা?

7.হোস্টিং কোম্পানির সার্ভার আপগ্রেড অপশনস আছে কিনা?

8.ওর্য়াডপ্রেস ও ই-কর্মাস স্টোর অপটিমাইজড হবে কিনা?

9.1 Click অটো অ্যাপস ইন্সটলার আছে কিনা ভালভাবে জেনে নিন?

10.একটি ওয়েবসাইটের লোডিং স্পিড ঠিক রাখার ক্ষেত্রে ৯৯.৯৯ % সার্ভার আপটাইম অনেক গুরুত্বপূর্ণ। তাই সর্বোচ্চ আপটাইম থাকবে কিনা?

11.প্রয়োজনে যেকোনো বিষয়ে সময়মত (২৪/৭ ফ্রেন্ডলি কাস্টমার সাপোর্ট) রিপ্লাই দেয় কিনা?

12.ফোন; ইমেইল; কিংবা ওয়েবচ্যাট সিস্টেমের মাধ্যমে কোন ডেডিকেটেড সার্পোট সংযুক্ত আছে কিনা?

13.ফ্রী ওয়েব সাইট ট্রান্সফার আছে কিনা? নাকি নির্ধারিত চার্জ দিতে হবে?

14.কোন হিডেন চার্জ এবং সেটআপ ফী আছে কিনা?

আরো জানুন:

15.আনলিমিটেড ব্যান্ডউইথ, বিজিনেস ইমেইল, সাবডোমেইন সুবিধা আছে কিনা?

16.কোম্পানীর পেমেন্ট সিস্টেম অনলাইনে ভিত্তিক কিনা? সেই সাথে প্রথম বছর হোস্টিং ফি কম নিয়ে দ্বিতীয় বছর রিনিউ করার সময় দ্বিগুন নেবে কিনা?

17.রিনিউ করার জন্য কতদিন আগে নোটিশ করবে? আবার সময়মত রিনিউ করতে না পারলে কতদিনের সুযোগ দেবে? এসব বিষয় জানতে হবে।

18.মানি ব্যাক গ্যারান্টি ও ফ্রি ট্রায়াল পিরিয়ড সুবিধা আছে কিনা জানতে হবে?

আরো জানুন:

শেষের কথা:

উপরে বর্ণিত টেকনিক্যাল বিষয় গুলো ছাড়াও আপনার ব্যবসায়ের ধরণ ও সাইটের বৈশিষ্ট্য অনুসারে আরও

যেসব সুযোগ সুবিধা প্রয়োজন আপনি চাইলে সেগুলো নোট ডাউন করে নিতে পারেন। যাতে করে পরবর্তীতে

এটা নিয়ে আপনাকে আর কোনো ঝামেলায় পড়তে না হয়।এছাড়া বেশির ভাগ হোস্টিং কোম্পানিরই নিজস্ব

কল সেন্টার ও সাপোর্ট টিম রয়েছে। আপনি চাইলে  কোম্পানির ওয়েব সাইট ভিজিট এর পাশাপাশি ফোন

করেও তাদের সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারবেন।লেখাটি ভাল লাগলে অবশ্যই আপনার বন্ধুদের কে শেয়ার

করতে ভূলবেন না। আজ এখানেই শেষ করি।

ভাল থাকবেন।।

Leave a Comment