ইউটিউব প্রতি ১০০০ ভিউতে কত টাকা দেয়

ইউটিউবে কত ভিউ হওয়ার পর আয় শুরু করা যায়?
কত ডলার আয় করার পর ইউটিউবের টাকা হাতে পাওয়া যায়?
ইউটিউব প্রতি ১০০০ ভিউতে কত টাকা দেয় বা YouTube এ কত View সমান কত টাকা।


সাধারণত যারা ইউটিউবে কাজ করার জন্য ভাবছেন কিংবা নতুন করে ইউটিউবে কাজ করতে শুরু

করেছেন তাদের মনে বার বার এই প্রশ্ন উকি দেয় যে, ইউটিউবে কাজ করলে প্রতি ১০০০ ভিউতে

ইউটিউব থেকে কত টাকা আয় করা যাবে। এ রকম প্রশ্ন জাগাটা অস্বাভাবিক কিছু নয়। কারণ আমি

যেখানে এত পরিশ্রম করে কাজ করব সেখান থেকে প্রতি ১০০০ ভিউতে কত টাকা পাবো সেটা জেনে

নেওয়াটা বুদ্ধিমানের কাজ। অন্যথায় দেখা যাবে এই কমন বিষয়টি না জেনে ইউটিউবে কাজ শুরু করে

দেওয়ার পর আশানুরূপ আয় না হলে মাঝ পথে কাজের প্রতি আপনার আগ্রহ নষ্ট হতে পারে।

আপনি হয়ত বিভিন্ন ইউটিউব ভিডিও দেখে ইতোপূর্বে জেনে গেছেন যে, ইউটিউব কখনো কখনো প্রতি

১০০০ ভিউতে ৫ ডলার দেয় আবার কোন কোন ক্ষেত্রে ১০০০ হাজার ভিউতে ইউটিউব মাত্র ১ ডলার

দেয়। আবার কেউ কেউ বলছে আপনি চাইলে কিছু ট্রিকস ফলো করে খুব সহজে ইউটিউব এর আয়ের

পরিমান বৃদ্ধি করতে পারবেন।

ইউটিউব প্রতি ১০০০ ভিউতে কত টাকা দেয়?

সাধারণত ইউটিউব সরাসরি ভিডিও এর ভিউ হিসাব করে টাকা দেয় না। ইউটিউব টাকা প্রদানের

ক্ষেত্রে অনেকগুলো বিষয় জাড়িত। সবগুলো বিষয় হিসাব নিকাশ ও বিবেচনা করার পর সাধারণত

ইউটিউব একজন ইউটিউবারকে টাকা প্রদান করে। আপনি হয়ত ইউটিউবে ভিডিও দেখার সময়

ভিডিওতে বিজ্ঞাপন শো হতে দেখেছেন। এই বিজ্ঞাপন দেখে হয়ত আপনি ইউটিউবের প্রতি বিরক্ত

হয়েছেন কিংবা অনেক খারাপ ভাষাও প্রয়োগ করেছেন। মূলত একজন ইউটিউবার তার ভিডিও এর

মধ্যে যে পরিমান বিজ্ঞাপন শো হয় সেই বিজ্ঞাপনের CPC, CTR ও RPM হিসেবে ইউটিউব এর কাছ

থেকে টাকা পেয়ে থাকে। সে জন্য ইউটিউব প্রতি ১০০০ ভিউতে কত টাকা দেয় বা YouTube এ কত

Views এ কত টাকা পাওয়া যায় সেটি জানার পূর্বে এর সহিত জড়িত আনুষাঙ্গিক বিষয় জেনে নিতে

হবে।

ইউটিউব চ্যানেল থেকে আয় করার উপায় কি?

সাধরণত একজন নতুন বা নরমাল ইউটিউবার এর আয়ের প্রধান উৎস হচ্ছে Google AdSense.

একটি ইউটিউব চ্যানেল যখন ইউটিউব এর নির্ধারিত লক্ষ্য অর্জন করে ফেলে তখন তার চ্যালেন এর

ভিডিওগুলো মনিটাইজ করার জন্য Google AdSene এর কাছে আবেদন করে। গুগল এ্যাডসেন্স টিম

আবেদন যাচাই করার পর সেই চ্যানেলটি মনিটাইজ করার মত উপযুক্ত মনেকরলে বা ভালোমানের

ভিডিও থাকলে তখন চ্যানেলটির এ্যাডসেন্স অনুমোদন করে। অনুমোদন পাওয়ার পর সেই ইউটিউব

চ্যানেল এর ভিডিও যখন কেউ দেখে তখন ভিডিওতে বিজ্ঞাপন শো হতে থাকে। তখন থেকে বিজ্ঞাপন

ভিউ হিসাব করে সাধারণত ইউটিউব একজন ইউটিউবারকে টাকা দিয়ে থাকে। এছাড়া একজন জনপ্রিয়

ইউটিবার নিম্নের উপায় হতে আয় করতে পারেন।

  • অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং (পন্য প্রমোট)।
  • প্রোডাক্ট রিভিউ (স্পনসরশিপ)।
  • নিজেস্ব পোডাক্ট বিক্রি করে।

ইউটিউব চ্যানেল দিয়ে AdSense অনুমোদন পাওয়ার উপায় কি?

আমি আগের প্যারেতে বলেছি যে, ইউটিউব এর নির্ধারিত লক্ষ্য অর্জন হওয়ার পর একটি ইউটিউব

চ্যালেন এর ভিডিও মনিটাইজ করার জন্য Google AdSene এর কাছে আবেদন করতে হয়।

ইউটিউবে ভিডিও মনিটাইজ করার জন্য আপনার চ্যালেনে এক হাজার সাবস্ক্রাইবার ও এক বছরে ৪০০০

ঘন্টা ওয়াচ টাইম এর মাইল ফলক অর্জন করতে হবে। ২০১৯ সালের পূর্বে এ রকম কোন শর্ত ছিল না

কিন্তু ২০১৯ সাল হতে এখনো পর্যন্ত এই নিয়ম বলবৎ আছে। কাজেই আপনি বুঝতেই পারছেন শুধু একটি

ইউটিউব চ্যানেল হলেই ইউটিউব থেকে টাকা ইনকাম করা যায় না। টাকা ইনকাম করতে হলে ইউটিউবে

আপনার জনপ্রিয়তা অবশ্যই থাকতে হবে।

লেখা গুলো পড়ে ভালো লাগলে অবশ্যই আপনার বন্ধুদেরকে শেয়ার করতে ভুলবেন না । আপনার

সুচিন্তিত মতামত আমার একান্ত কাম্য। তাই এই বিষয়ে আপনার যদি কোন মতামত থেকে থাকে তাহলে

অবশ্যই নিচে কমেন্ট করে জানাবেন। আমি আনন্দের সহিত আপনার মতামত গুলো পর্যালোচনা করে

রেপ্লাই দেওয়ার চেষ্টা করবো।

ভাল থাকবেন।

simonpan

শিমন পান হলেন , এই ওয়েব সাইটের একজন প্রফেশনাল এফিলিয়েট মার্কেটার। এফিলিয়েট মার্কেটিং বিষয়ক খুঁটিনাটি বিষয়বস্তূ নিয়ে আলোচনা করা এবং মাতৃভাষা বাংলাতেই কিভাবে একজন ব্যাক্তি জিরো থেকে শুরু করে সফলতার শীর্ষে অবস্থান করতে পারেন তা নিয়ে আলোচনা করাই এই ওয়েবসাইট এর মূল উদ্দেশ্য । তিনি অনলাইনে কাজ শুরু করেন ২০১৮ সালের জানুয়ারী মাসে । তার প্রথন সাইটটির নাম হল www.makemoneywithdada.com এফিলিয়েট মার্কেটিং বিষয়ক বিভিন্ন আপডেট পেতে নিয়মিত এ ওয়েবসাইট টি ভিসিট করুন। যেকোনো তথ্যের জন্য যোগাযোগ করুন :- simonpanbd@gmail.com

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *